মধ্যপ্রদেশে ৯১% কৃষকের হবে না লোন মাফ! কংগ্রেস ও মিডিয়া মিলে মূর্খ বানালো জনগণকে।

মধ্যপ্রদেশে ক্ষমতায় আসার আগে রাহুল গান্ধী জনগণকে আশ্বাস দিয়েছিল যে ক্ষমতায় এলে কৃষকদের লোন মাফ করে দেওয়া হবে। রাহুল গান্ধীর বক্তব্য ছিল-” মধ্যপ্রদেশে আমাদের সরকার  গঠন হলে ১০ দিনের মধ্যে কৃষকদের ঋণ মাফ করে দেওয়া হবে। গ্যারান্টি করে বলছি ১১ দিন লাগবে না, কৃষকদের লোন মাফ করে দেওয়া হবে।”এখন মধ্যপ্রদেশে সরকার গঠন সম্পন্ন হয়েছে। কিন্তু দুঃখের বিষয় এই যে মধ্যপ্রদেশে ৯১% শতাংশ কৃষকের লোন মাফ হবে না। গতকাল মধ্যপ্রদেশের নতুন মুখ্যমন্ত্রী কমলানাথ একটা কাগজে স্বাক্ষর করেন তার পর থেকে দেশের মিডিয়া ও কংগ্রেস IT সেল দাবি করছে যে কথা দিয়ে কথা রাখলো কংগ্রেস, কৃষি ঋণ মুকুব করলো কংগ্রেস।

মিডিয়া ও কংগ্রেস দেশ জুড়ে প্রচার শুরু করেছে যে কৃষকদের ঋণ মাফ করে দেওয়া হয়েছে, মুখ্যমন্ত্রী কমলনাথ স্বাক্ষর করে দিয়েছেন। কিন্তু দেশের কোনো মিডিয়া এটা জানায়নি যে কোনো কোন শর্তের উপর কৃষি লোন মাফ করবে কংগ্রেস।

জানিয়ে দি, শর্ত অনুযায়ী মধ্যপ্রদেশে কংগ্রেস সেই সমস্থ কৃষকদের লোন মাফ করবে যাদের ঋণের পরিমাণ ২ লক্ষের উপরে নয়। অর্থাৎ ২ লক্ষ অবধি কৃষি ঋণ মাফ করে হবে।

পরবর্তী শর্ত অনুযায়ী, লোন ৩১ শে মার্চ ২০১৮ এর  আগে নিতে হবে। অর্থাৎ যারা ৩১ শে মার্চের পর লোন নিয়েছে তাদের ঋণ মাফ হবে না। তাতে সেটা যদি ১ টাকাও হয় তাও মাফ করা হবে না। উল্লেখ্য, কৃষক বীজ কেন কাটা করে জুলাই থেকে সেপ্টেম্বরের মধ্যে কালীন মাসে। জুলাই, আগস্ট, সেপ্টেম্বর এই মাস গুলিতে মধ্যপ্রদেশের কৃষকরা বীজ কেনার জন্য লোন নেয়। কিন্তু কংগ্রেস শুধুমাত্র মার্চের আগে লোন নেওয়া কৃষকদের ঋণ মুকুব করবে। অর্থাৎ বেশিরভাগ কৃষকদের কপালে জুটবে না লোন মুকুবের সৌভাগ্য।

শুধু এই নয়, লোন তাদেরি মাফ হবে যারা সিজিনাল ফসলের জন্য লোন নিয়েছে। অর্থাৎ যদি কেউ কৃষিকাজের ট্রাক্টর, বোরিং,মেশিন ইত্যাদি কেনার জন্য লোন নিয়েছে তাদের ঋণ মুকুব করা হবে না।

লোন শুধু তাদেরই মাফ করা হবে যারা রাষ্ট্রীয় ব্যাংক অথবা সরকারি ব্যাঙ্ক থেকে ঋণ নিয়েছে। অর্থাৎ আপনি যদি অন্য কারোর কোথাও থেকে লোন নিয়েছে তাহলে সেই লোন মাফ হবে না।

সরকারি ব্যাঙ্ক থেকে নেওয়া লোন তখনই মাফ হবে যখন সেটা  ডিফলটার ঘোষিত হবে। যদিও অধিকতর ২ লক্ষের নীচে নেওয়া কৃষক লোন ডিফলটার ঘোষিত হয় না।

এই সমস্থ কিছু শর্ত পূরণ করার মধ্যে মধ্যপ্রদেশে মাত্র ৯% কৃষক রয়েছে। অর্থাৎ এই ৯% কৃষকদের লোন মাফ হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে, বাকি ৯১% কৃষকদের লোন মাফ সম্ভব নয়। জানিয়ে দি, রাহুল গান্ধী নির্বাচনী প্রচারে যখন লোন মাফের আশ্বাস দিয়েছিলেন তখন কোনো শর্তের কথা বলেননি কিন্তু এখন সরকার গঠনের পর লোন মাফের সময়  সমস্থ কিছু ট্রাম এন্ড কন্ডিশন বসিয়ে দিয়েছেন। অন্যদিকে দেশের দালাল মিডিয়া এই বলে অপপ্রচার করছে যে মধ্যপ্রদেশে কংগ্রেস সরকার লোন মাফ করার কাজ শুরু করে দিয়েছে।

Related Articles

Leave a Reply

Close