Trending

বঙ্গ-বকম গল্পের এক নতুন পর্ব -(পর্ব : ১ )

বৃষ্টি | বর্ষা | বেশ জটিল যৌগিক এক সমীকরণ | সিঁদুরে মেঘ দেখে ভয় পাওয়ার মতোই | যে কোনো লেখার শুরুতে ভণিতা খুবই দরকারি | সম্পাদক সাপের গালে আর ব্যাং-এর গালে  চুমু অসাধারণ দক্ষতায় খেতে পারেন | তাও মাথায় তুলে এঁদের রাখতেই হয় | আমার মত সদ্য উঠতি লেখকেরা এঁদের জন্যেই কিছুটা স্পেস পান | যেকোনো লেখা যদি ছাপার অক্ষরে প্রকাশিত হয় তবে তার আলাদা এক কদর আছে | মান বাড়ে প্রেমিকার কাছে | মাথায় রাখবেন ভুলেও শ্বশুরের কাছে কখনই লেখা পড়ানোর দুঃসাহস দেখাবেন না | তবে প্রেমের হাল বাম জমানার সিঙ্গুর হবেই |
যে কথায় ছিলাম | হাঁ জটিল যৌগিক এক সমীকরণ | বৃষ্টি | অসম্ভব  সেক্সি এক বস্তু | একদম জিরো ফিগার | খাসা |


এই ধরণের জিনিস নিয়ে কিছু বলার আগে বাজার অর্থনীতির কথা বলতেই হয় | গত ৩৪ বছরের অভ্যাস | মতান্তরে ৩৫ | অর্থনীতি  নিয়ে বাতেলা দেব আর প্রেজেন্টেসন  দেব না তাই হয়  নাকি | প্রেজেন্টেসনটা কিন্তূ ভার্চুয়াল হবে | মানে, লেখা পড়তে পড়তে মনের সেই জায়গায় যেখানে ইমেজ তৈরী হয় সেখানে ইমাজিন করুন প্লিজ |
রেডি | আসুন তবে এক পিরামিড বানাই | যার  প্রথমে অর্থাৎ, ভূমিতে  গরীব-গুর্বো থাকবে |  তার ওপর কম গরীব | তারপর পর্যায়ক্রমে মধ্যবিত্ত , উচ্চবিত্ত , এবং পুঁজিপতিদের  রাখা হলো | ইমেজ টা  দেখবেন একটা পিরামিডের  | ঠিক তেমনি পিরামিডের বিভিন্ন ব্লকে যারা আছেন , তাদের খেলার দিকে একটু আলোকপাত করি | গরীব-গুর্বোদের পা থেকে যদি ফুটবলের জন্ম হয় তবে পুঁজিপতিদের খেলা গল্ফ | মাঝে রাখুন রাগবি , বাস্কেটবল , ক্রিকেট , টেনিস বল | নজর করুন  সইজের ওপর | নির্ঘাত খারাপটাই ধরেছেন | জানতাম চোরের মন বোঁচকার দিকে | আমি বলের সইজ নিয়ে কথা বলছিলাম | নীচ  থেকে যত ওপরে উঠবেন দেখবেন বল তত ছোট হচ্ছে | বৃষ্টিও তেমন | গরীব-গুর্বো কাছে যা মুশল ধারার পুঁজি পতির কাছে তাই ইলশেগুড়ি | তাই বলে বৃষ্টি কখনই পুঁজিপতির বাপের সম্পত্তি নয় |


জীবনে এখন অর্থিক প্রভাব সাংঘাতিক | জৈবিক রসও অর্থিক ভাবে নিয়ন্ত্রিত | দলবদলের মতো বান্ধবী নিলাম হয় এখন মুক্ত অর্থনীতিতে  | ডেভিড কার্ডের থেকেও জরুরি ক্রেডিট কার্ড | বহুজাতিক সংস্থা আছে | আছে বটতলার টিয়া | তবুও প্রেম প্রেমই | 
বর্ষাকাল, আমার মতো অল্প-শিক্ষিত , ছাপোষা মধ্যবিত্তের মনও পেখম তুলে নাচে | তেমনি রাজাবাজারে পলিথিনে ঢাকা রুকসানার সংসারে জোয়ার আসে | হিলস আর এনাদার সাইড পিঠে লেখা , দৃশ্যমান বিভাজিকা থেকে এই বুঝি উড়ল ট্যাট্টু-রুপী প্রজাপতি , বিদেশী কোলনে সুবাসিত তরুনীরও  বাঁ-দিকে নিঁচে ঠোঁটটা ফোলা | আসলে কাল বৃষ্টি হযেছিল | বৃষ্টির সাথে প্রেমের এক অসাধারণ গাটছড়া রযেছে |


আকাশলীনারা অভিসারী মেঘের মতোই | কালিদাসের সময়ে প্রেমিকের বার্তা আসত আকাশ পথে | সেই ট্র্যাডিসন এখনো চলছে | এখনো প্রেমিকের বার্তা যায় আকাশ পথে | মোবইলে | শুধু বার্তা নয় গোপন অনেক কিছুই চলে যায় |  বিশ্বাস করে যে গতকাল শরীর সমর্পণ করেছিল , সেই শরীরী ভিডিও পৌঁছে গেছে বাজারে | এটা কি প্রেমের এক পর্যায় ? নিশ্চয় নয় |


যারা বৃষ্টিতে ভিজে ছিল তাদের শেষে কি হযেছিল আমি জানিনা | তবে ভাইরাল ইনফেকসন থেকে বাঁচতে ছাতা আর কন্ডমের কোনো বিকল্প নেই | সাবধানের মার নেই , সাথে  এই দুটো রাখতে হবেই |


 জানি মামা , খুব বিতর্ক হবে | হোক | আমি বিতর্ক চাই | বিষয় যখন বর্ষা , আমি ভিজতেও  চাই এবার শুকনো থাকতেও চাই | আমার ছোট বেলায় শেখা কবিতার এক কলি – 
কাল ছিল ডাল খালি / আজ গেল ফুলে ভরে |
 কাল পরনে ছিল  দাদার ” মোর নাম এই বলে খ্যাত হোক ” লেখা গেঞ্জি | ঝোঁপ বুঝে ঠিক সময় দিদির দেওয়া মোটা কাপড় মাথায় তুলে নেওয়া হলো | দিন দিন জীবন আলিপুরের হওয়া মোরগ হওয়া যাচ্ছে |  বাঁ না ডান কোনটায়  আসবে মুক্তিসূর্য | টোটাল ঘেঁটে | কাক ডাকুক বা না ডাকুক যেতে তো হবেই |


বর্ষা কালে বিস্তর সমস্যা | জামা কাপড় শোকায় না | বেশ আঁশটে গন্ধ | প্লিজ আঁশটে গন্ধের সঙ্গে ওই আঁশটে গন্ধ মেশাবেন না | হঠাত পরকিয়া যার সঙ্গে চলছে মাঝ  দুপুরে তার ফোন | বাড়ি ফাঁকা | নিশ্চিন্তে প্রেম হবে আজ | বুক ভরা ভালবাসা না ভরা বুকের টান এই সব সাত পাঁচ ভাবতে ভাবতে বারান্দায় এলেন | দড়িতে শুকোতে দেওয়া আম্তর্বাসের দিকে হাত দিতে গিয়ে চুল খাড়া | শেষ বেলায় বগলের ডিও নিচে নামে |
বর্ষায় কলকাতা সব এলাকা যে ভালো অবস্থায় থাকে তা নয় | তবে শীত গ্রীষ্ম বর্ষায়  আমি রেড রোডের ফ্যান | এই রাস্তায় বৃষ্টির এক অসাধারণর রম্যান্টিসিম রযেছে | প্রেমিকার হাতে হাত রেখে বৃষ্টি ভেজা রাস্তায় হাঁটার মজাটা যার হেঁটেছেন তারাই জানেন | শরীর সাথে সেঁটে থাকা পোশাক আর মাঝে মাঝে জাপটে ধারার ইচ্ছে | ভিজতে ভিজতে চুমুর স্বাদটা একদম আলাদা |


তুমুল বৃষ্টি হচ্ছে | ১২ তলার ওপর সাজানো ফ্লাট | দক্ষিণে কাঁচ বসানো জানালা  থেকে প্রকৃতিটা দেখা যায় | এক চিলতে সবুজে বেশ লাগে  বৃষ্টি দেখতে | মনে হয় যেন রেন-ফরেস্ট | এমন দিনে বুকে বালিশ বালিশ নিয়ে বউ রহস্য উপন্যাস পড়ছেন | কর্তা কাঁচ দেওয়া বারান্দায় বসে স্কচে ঠোট ভেজাচ্ছেন | কর্তার সামনে দুটো দৃশ্য | আরশির ওপারে অবিরল ধারায় বৃষ্টি | আর এপারে  চিবুক , লকেট আর ক্লিভেজে আলো-আধার গোলক ধাঁধার রহস্যময়ী পথ | ওই পথ ডাকছে ,  এস পাপ করি | এক ঢোকে গেলাস শেষ |গেলাস যেই শেষ ঠিক তক্ষনি  ঝাড়ু হাতে মালতি বারান্দায় | কর্তার বাড়ির কাজের মেয়ে | সুস্তনি , পেট বার করে গাছ কোমর শাড়ি পরে | অসম্ভব সেক্সি | পোলের তলার ঝুপড়ি বস্তিতে থাকে | মস্তির জিনিস মাইরি | কর্তা তাই ডবকা বলেন | অনেক ঘি ঢেলে প্রথম মাস খানেক ওরাল | ওরালের পর দর কষা-কষি | আপোষ মীমাংসায় রফা সুত্র ধরে , পরশু দুপুরে বিছানায় | কর্তার বউ সেদিন  সপিং-এ গেছিলেন | কর্তার বুনো বেড়াল মনে হযেছিল | বেশ উত্তেজনা ছিল | সবেই জল ঢালল মালতি | বলে কিনা , দাদাবাবুগো ওই সাপ জাগানো তেলটা মাখো | ৬বি -র দাস বাবু কিন্তূ ফল পেয়েছেন |


আজ যখন ঝেঁপে বৃষ্টি নেমেছে কর্তার মন নাচছে তখন | খানিক পরই পোলের তলা ভেসে যাবে | জল থৈ থৈ হবে মালতির ঘরে | বাপ ছেড়ে যাওয়া মাকে নিয়ে কোথায় যাবে | এই ভাবতে ভাবতে কর্তা ধরালেন সিগারেট | জমিয়ে সুখটান | দেখ কেমন লাগে | সাপ জাগানো তেল আপাতত জল থেকে বাঁচ |
সত্যি মালতিদের মতো যারা আর্থিক পিরামিডের নিচের তলা গুলোতে থাকেন তাদের কাছে বর্ষা অভিশাপ | ভেসে যায় সংসার | সারাদিন গুটিসুটি হযে এক চিলতে প্লাস্টিকের তলায় বসে নিশ্চয় বৃষ্টি দেখার নুন্যতম বাসনা  থাকেনা |  টানা বৃষ্টিতে নাস্তানাবুদ কলকাতা |পরিচিতাকে বৃষ্টি বিলাসের sms পাঠাছিলাম | হঠাত লিখল, কাল পারলে এক বার স্কুলে এসো | কি কারণে জরুরি তলব জানি না | সক্কাল সক্কাল  স্কুলে হাজির | শৈশব হারিয়ে যাওয়া শিশুদের পরিবার | পথশিশুদের সমাজের মূল স্রোতে নিয়ে আসার এক অসাধারণ প্রচেষ্টা নিয়েছে এই সংগঠনটা | বৃষ্টি দেখে বেশ ফুরফুরে ছিলাম | স্কুলে ঢুকেই বিষাদে ভরে গেল মনটা | কাক ভেজা হযে শিশুরা দাড়িয়ে আছে | স্কুলের দিদিমনিরা শিশুদের শুকনো জামা কাপড়  দিচ্ছেন পরার জন্যে | চার বছরের এক শিশুর সাথে পরিচয় হলো | সে গত তিন রাত ঘুময়নি  | কোনো এক শেডের তলায় সারা রাত রাস্তার কুকুরের সাথে রাস্তার ছেলেটি মাথা বাঁচানোর বোকা চেষ্টা করে গেছে | ঘোর ভাঙ্গে পরিচিতার sms -এ | sms -এ লেখা ” হাজার কষ্ট হলেও আমি তাই কলকাতায় বৃষ্টি চাই না |”
আর আমি | গত কালও রাতে জানলায় বসে সিগারেট খেতে খেতে বৃষ্টির দৃশ্যসুখ উপভোগ করছিলাম | আর্জি  ছিল , আরও বৃষ্টি আরও বৃষ্টি |
 আজ আর্তি আছে | থামুক বৃষ্টি |অনেক বিলাস হযেছে তোমায় নিয়ে বৃষ্টি | না হয় আমাদের মতো নিশ্চিত আশ্রয় যাদের আছে,  প্রেমে খাদ আসতে পারে তাদের | কিন্তূ যাদের মাথায় প্লাষ্টিকটাও নেই , তাদের কি কি হতে পারে কখনও কি ভেবে সময় নষ্ট করি ?

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Close