হাতে অস্ত্র নিয়ে হিন্দু বাড়িতে ঢুকে ধর্ষণ করার চেষ্টা করলো উন্মাদীরা। চিৎকার করে বাঁচলো প্রাণ।



বিহারের বেগুসরাই লোকসভা কেন্দ্র যা নির্বাচনের সময় খুব চর্চার মধ্যে ছিল, সেখান থেকে একটা চাঞ্চল্যকর খবর সামনে আসছে। পুরো দেশজুড়ে রেপ জিহাদ শুরু হয়েছে আর দেশের দালাল মিডিয়া সেটাকে ধামাচাপা দিতে নেমে পড়েছে। স্বভাবতই বেগুসরাইয়ের ঘটনা নিয়েও মুখে কুলুপ এঁটেছে বুদ্ধিজীবী ও মিডিয়া। খবর অনুযায়ী, এক হিন্দু মহিলার বাড়িতে ৩ জিহাদী কট্টরপন্থী জোরপূর্বক প্রবেশ করেছিল। ঘটনা বেগুসরাইয়ের নৌরাপুরা এলাকার যেখানে ১০ই জুন এক হিন্দু বাড়িতে ৩ জন জোহাদী প্রবেশ করার জন দরজা ঠক ঠক করে।

ভেতর থেকে দরজা খোলা হলে ৩ জিহাদী দাঁড়িয়ে ছিল, যাদের মধ্যে ২ জনের হাতে অস্ত্রসস্ত্র ছিল এবং একজন সম্পূর্ণ উলঙ্গ অবস্থায় ছিল। ৩ জনে জোরপূর্বক বাড়িতে প্রবেশ করে বাড়িতে থাকা একমাত্র ব্যাক্তির মাথায় বন্ধুক ঠেকায়। উলঙ্গ ব্যাক্তি বাড়ির মহিলাকে ধর্ষন করার চেষ্টা করে, একই সাথে বাড়িতে এক মেয়ে ছিল তাকেও ধর্ষণ করার চেষ্টা করে। কিন্তু মহিলা নিজেকে বাঁচানোর জন্য চিৎকার করে যার দারুণ ৩ জিহাদি পলায়ন করে।

এর মধ্যে একজনের নাম লাড্ডু আলম, যে ফিরোজ আলমের ছেলে। বাকি দুজন অজ্ঞাত ব্যাক্তি কিন্তু তারাও জিহাদী কট্টরপন্থী। পীড়িত ছেলে ও তারা মা পুরো ঘটনার বিবরণ দিচ্ছে যা পাঠকরা উপরে দেখতে পাবেন। হিন্দু পরিবার জানায় যে, জিহাদীরা তাদের বাড়িতে ঢুকে ধর্ষনের চেষ্টা চালায়। কট্টরপন্থীরা হুমকি দেয় যে হিন্দুদের সংখ্যা এখন এলাকায় কমে গেছে তাই কেউ কিচ্ছু করতে পারবে না। ওই হিন্দু পরিবারকে পালিয়ে যাওয়ার জন্য হুমকি দেয় জিহাদিরা।





Source link

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Close