পুলওয়ামা হামলার পর, এখনো পর্যন্ত জাকির মুসা সমেত ১২৫ জঙ্গিকে খতম করেছে সেনা



জম্মু কাশ্মীরে ১৪ ই ফেব্রুয়ারি পুলওয়ামা হামলার পর উপত্যকায় ভারতীয় সেনা জঙ্গি সাফাই অভিযানে নেমে এখনো পর্যন্ত ১২৫ জন জঙ্গিকে খতম করেছে। মে মাসের শেষের দিকে একটি রিপোর্ট বেড়িয়েছিল, সেই রিপোর্ট অনুযায়ী ফেব্রুয়ারি মাসের পর সেনা আরও জোরদার করে অল আউট অপারেশন চালিয়ে ১০১ জন জঙ্গিকে খতম করেছে।

১৪ ই ফেব্রুয়ারি পুলওয়ামা হামলার কিছুদিন পর ভারতীয় সেনা জইশ এর স্থানীয় কম্যান্ডার রাশিদ গাজি কে খতম করেছিল। রাশিদ গাজি পুলওয়ামার হামালার প্রধান ষড়যন্ত্রি ছিল, আর এই হামলাকে সফল করার জন্য সে মুখ্য ভুমিকা পালন করেছিল।

এরপর ২৭ ফেব্রুয়ারি ভারতীয় বায়ুসেনা পাকিস্তানের বালাকোটে ঢুকে জইশ-এ-মোহম্মদ এর জঙ্গি ঘাঁটি গুঁড়িয়ে দেয়। সংবাদ মাধ্যমের রিপোর্ট অনুযায়ী, ভারতীয় সেনার বিমান হানায় জইশ এর ২০০ এরও বেশি জঙ্গি খতম হয়েছিল।

এরপর ভারতীয় সেনা জইশ-এ-মোহম্মদ এর জেলা কম্যান্ডার মুদাসির খানকেও খতম করেছিল। মুদাসির পুলওয়ামা হামলায় জড়িত জঙ্গিদের সাহায্য করেছিল, আর তাঁদের প্ল্যান অনুযায়ী চলার জন্য অনেক ষড়যন্ত্র করেছিল। সেনা মুদাসিরের সাথে সাথে আরও তিন জঙ্গিকে খতম করেছিল।

আরেকদিকে মঙ্গলবার জম্মু কাশ্মীরের অনন্তনাগে ভারতীয় সেনা পুলওয়ামা হামলার বদলা পূরণ করে। সেনা পুলওয়ামা হামলার মাস্টার মাইন্ড জইশ কম্যান্ডার সাজ্জাদ বাটকে মঙ্গলবার খতম করেছিল। এই এনকাউন্টার অনন্তনাগের বাঘোমা তে হয়েছিল। এই এনকাউন্টারে সাজ্জাদ বাট ছাড়াও আরও এক জঙ্গি খতম হয়েছিল। তাছাড়াও জঙ্গিদের গুলিতে এক সেনা শহীদ হয়েছিলেন।

মে মাসে মোস্ট ওয়ান্টেড জঙ্গি জাকির মুসাকে খতম করে বড়সড় সাফলতা অর্জন করেছিল সেনা। আল কায়দার কাশ্মীর ইউনিটের আন্সার গজবত উন হিন্দ এর প্রধান জাকির মুসা দক্ষিণ কাশ্মীরের ত্রালে সেনার এনকাউন্টারে খতম হয়। হিজবুল কম্যান্ডার বুরহান ওয়ানির পর জাকির মুসাই কাশ্মীরে জঙ্গিদের পোস্টার বয় ছিল।

রিপোর্ট অনুযায়ী, সেনা কাশ্মীরে ফেব্রুয়ারি মাস থেকে এখন পর্যন্ত ১২৫ জন জঙ্গিকে খতম করেছে। শুধু জুন মাসেই আনুমানিক ২৪ জন জঙ্গি খতম হয়েছে। ওই জঙ্গিরা লস্কর-এ-তৈবা, হিজবুল মুজাহিদ্দিন আর জইশ-এ-মোহম্মদ এর সাথে যুক্ত ছিল। গত কয়েক মাসের এনকাউন্টারে সেনা প্রচুর পরিমাণে বিস্ফোটক আর হাতিয়ার উদ্ধার করেছে।



Source link

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Close