হিন্দুদের কাবাড় যাত্রা, মুসলিমদের বকরি ঈদ এক সময়ে হওয়ায় যোগী আদিত্যনাথ করলেন দুর্দান্ত পরিকল্পনা।



উত্তরপ্রদেশের রাজনীতিকে দেখতে গেলে সেখানে আজকাল যোগী আদিত্যনাথের (Yogi Adityanath) নামেরই ঢোল বাজছে। কারণ উনি একমাত্র মুখ্যমন্ত্রী যিনি কোনো তোষণ ছাড়াই সরকার চালাচ্ছেন। পাওয়া খবর অনুযায়ী UP মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ জুলাই তে শুরু হওয়া কাবাড় যাত্রাকে নিয়ে পুরো রাজ্যের কর্মকর্তাদের কঠোর আদেশ দিয়েছে। কাবাড় যাত্রা ১৭ জুলাই থেকে শুরু হবে। এই উৎসবে শিব ভক্তরা বাবা ভোলানথের মাথায় জল ঢালবে। কাবাড় যাত্রা এক মাস অব্দি চলবে। যেটিকে নজরে রেখে এইবার যোগী আদিত্যনাথ প্ল্যান করেছেন যে যাত্রাকে অন্য বছরের তুলনায় আরো ভালো করে পালন করা হবে।

যোগী আদিত্যনাথ মন্ডল স্তরীয় এবং সব জেলার পুলিশ প্রশাসনকে সুরক্ষার ইস্যুতে ভিডিও কনফারেন্সিং এর মাধ্যমে কড়া নির্দেশ দিয়েছেন। সাথেই যোগী আদিত্যনাথ ওনাদের এই বছর হওয়া কুম্ভ মেলায় আয়োজন থেকে কিছু শিক্ষা নিতে বলে।ইউপি এর মুখ্যমন্ত্রী বলে ‘ কিছু লোক পরিস্তিতি খারাপ করার পরিকল্পনা একটানা প্রয়াস করেই যাচ্ছে। এদের উদ্দেশ্যকে কিছুতেই সফল হতে দেওয়া যাবে না। আরাজগতা ছড়ানোর চেষ্টা করা লোকেদের আগে থেকেই চিহৃত করে প্রভাবী কার্য করা হোক।

কিন্তু এই খবরের একটি দ্বিতীয় অধ্যায় আছে যে কাবাড় যাত্রার সময় বকরি ঈদের অনুষ্ঠান আছে। এমনিতেই যেখানে হিন্দু মুসলিমের ব্যাপার আসে তখন ধার্মিক দৃষ্টিতে মামলা প্যাঁচালো হয়ে যায়।
কিন্তু এর উপর বিশেষ  নজর রেখে মুখ্যমন্ত্রী বলেছে ” কাবাড় যাত্রার সময় বখড়ি ঈদের উপলক্ষ আছে । এইবার বখড়ি ঈদ এবং কাঙবোর যাত্রার অন্তিম সোমবার একই দিন ১২ আগস্ট আছে। যার কারণে সেই সময় আরো বেশি সংবেদনশীল হয়ে যাবে। এই জন্য সব অফিসার এই ব্যাপারে সুনিশ্চিত করে নিক যে কোথাও আলাদা করে নতুন কোনো অনুষ্ঠান যেন না হয়। হিন্দু-মুসলিমের বিষয়ে কোনো নির্ণয় নেওয়া খুব কঠিন ব্যাপার।

জানিয়ে দি আগে উত্তরপ্রদেশে বকরি ঈদের নামে উট ইত্যাদি বড় প্রাণীকে রাস্তায় হত্যা করা হতো। যোগী আদিত্যনাথ ক্ষমতায় এসে উঠ ইত্যাদি বড় প্রাণীর হত্যার উপর নিষেধাজ্ঞা লাগিয়েছেন। মুখ্যমন্ত্রীর আদেশ অনুযায়ী নিষেধাজ্ঞা শ্রেণীর কোনো জানোয়ার বখড়ি ঈদের দিন কাটা যেন না যায়। সাথেই উনি নির্দেশ দিয়েছেন যে, সব সংবেদনশীল জায়গায় CCTV ক্যামেরা লাগাতে হবে। সাথেই সুরক্ষা ব্যবস্থায় বিশেষ নজর রাখতে হবে। যোগী হেলিকপ্টারের সাহায্যে কাবাড় যাত্রার লোকেদের সুরক্ষায় নজর রাখার কথা বললেন। সাথেই আদেশ দেয় কোনো শিবালয়ের আসে পাশে মাংস বা মদের দোকান বা অবৈধ কসাইখানায় যেন না থাকে। মুখ্যমন্ত্রী ডিএম ও এসএসপি কে জেলার নিয়মিত পরিদর্শন করতেও বলেছেন।



Source link

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Close