ভারতকে দিত যুদ্ধের হুমকি! এখন নিজের দেশেই ব্যান হলেন পাকিস্তানের রেলমন্ত্ৰী শেখ রশিদ।


সবসময়ে ভারতের বিরুদ্ধে বলে আশা পাকিস্তানের রেল মন্ত্রী শেখ রশিদের বক্তব্য তার নিজের উপরই সমস্যা তৈরি করেছে। পাকিস্তানের রেলমন্ত্রী শেখ রশিদের কভারেজ এবং বক্তব্যকে সাময়িকভাবে জাতীয় প্রেস ক্লাবে (এনপিসি) নিষিদ্ধ করা হয়েছে। পাকিস্তানি পত্রিকা ডনের মতে, তাঁর বিরুদ্ধে এক সাংবাদিককে অপমান করার অভিযোগ রয়েছে। এনপিসির চেয়ারম্যান শাকিল কর সরাসরি লাইভ টিভি ভিডিও সাংবাদিক নাসিরের সাথে দেখা করার পরে এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। ক্যান্সারে আক্রান্ত এই সাংবাদিক রাওয়ালপিন্ডির বেনজির ভুট্টো হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। প্রেস ক্লাবটি প্রেস বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করেছে এবং এ সম্পর্কে অবহিত করেছে।

বিজ্ঞপ্তি অনুসারে, নাসির, শাকিলকে বলেছিলেন যে, রশিদ হাসপাতালে ভ্রমণ করতে এসেছিলেন তখন এক স্থানীয় সাংবাদিক রশিদের নজর নাসিরের দিকে ইঙ্গিত করেছিলেন এবং তারপর রেলমন্ত্রী আক্রমণাত্মক শব্দ ব্যবহার করেছেন যা নাসিরের অনুভূতিকে আহত করেছিল।
এর পরই রাওয়ালপিন্ডি ও ইসলামাবাদে রশিদের কাভারেজ নিষিদ্ধ করার এবং প্রেসক্লাবে এক সপ্তাহের জন্য প্রবেশ নিষিদ্ধ করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। তবে এনপিসি রশিদের বক্তব্যযুক্ত আপত্তিজনক কথা প্রকাশ করা হয়নি। গত বছরেও এরকমই একটি ঘটনা ঘটেছিল। রেলমন্ত্রী পদে শেখ রশিদের নিয়োগ নতুন ছিল। তিনি তার সাথে দেখা করতে আসা একজন বয়স্ক মহিলাকে গালি দিয়েছিলেন। একই সঙ্গে ঘটনাটি রেকর্ড করতে চাইলে সাংবাদিকের মোবাইল ছিনিয়ে নিয়ে ভেঙে দিয়েছিলেন।

কাশ্মির সম্পর্কে ভারতের সিদ্ধান্তের কারণে ক্ষেপে থাকা পাকিস্তান থেকে রোজই নিত্যনতুন বয়ান আসে এবং তাদের অদ্ভুত আচরণের কথাও জানতে পারা যায়। এই ধারাবাহিকতায় শেখ রশিদ খুব বেশি পিছিয়ে নেই। সম্প্রতি তিনি ভারতে পারমাণবিক হামলার হুমকি দিয়েছেন। তবে এর জন্য তাকে লন্ডনে খোঁচা দেওয়া হয়েছিল এবং তার দিকে ডিম নিক্ষেপ করা হয়েছিল।  বিতর্কিত বক্তব্যের জন্য সর্বদা খবরে থাকা শেখ রশিদ আওয়ামী মুসলিম লীগের প্রধান। ক্ষুব্ধ পাকিস্তানি রেলমন্ত্রী বলেছেন, ভারতীয় নেতারা আমার মৃত্যু চান
ভারতকে পারমাণবিক হামলার হুমকি দিয়েছিল ইমরান। এদিকে, ইমরানের মন্ত্রী লন্ডনে মার খেয়েছেন ও  ডিম নিক্ষেপও করা হয়েছিল।



Source link

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Close