মাথায় হাত পড়লো মমতার! NRC লাগু হবে পশ্চিমবঙ্গেও, রাজ্যে আসছেন অমিত শাহ।



ভারত দেশকে ভাগ করে দুটি ইসলামিক দেশ তৈরি করা হয়েছে। কিন্তু তার পরেও দুই দেশ থেকে অনবরত অবৈধ অনুপ্রবেশের ঘটনা ঘটিত হয়। যার ফলে দেশের ব্যাপক হারে ক্ষতি হয়। ভারতের কিছু কিছু জায়গায় অবৈধ অনুপ্রবেশের জন্য হিন্দুদের সংখ্যা কমে গিয়ে ডেমোগ্রাফিক পরিবর্তন হয়েছে। দেশের সম্পত্তিও একটা সীমিত অবস্থায় থাকে। তাই বিদেশী জনসংখ্যার বোঝা থাকলে ভারত দেশ নিলে মানুষ সুযোগ সুবিধা, কর্মসংগস্থান, চাকরি ইত্যাদি বহু ক্ষেত্রে সমস্যা দেখা যাবে। এছাড়াও অবৈধ অনুপ্রবেশের জন্য দেশে দাঙ্গা, অপরাধ এর সংখ্যাও ব্যাপকভাবে বৃদ্ধি পায়।
তাই সরকার NRC লাগু করে দেশকে মজবুত করার চেষ্টায় নেমেছে।

ন্যাশনাল রেজিস্টার অফ সিটিজেন (NRC) নিয়ে দেশেজুড়ে চলমান বিতর্কের মধ্যে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহের ১ই অক্টোবর কলকাতা যাত্রা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ হবে বলে জানা গেছে। কলকাতার নেতাজি ইন্ডোর স্টেডিয়ামে ১ই অক্টোবর অমিত শাহ এনআরসি এবং নাগরিকত্ব সংশোধনী বিলের উপর বক্তব্য রাখবেন। পশ্চিমবঙ্গে, এনআরসি এবং নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল রাজনৈতিক ঝড় তৈরি করেছে। বিজেপি NRC কে অবৈধ অনুপ্রবেশকারীদের বিরুদ্ধে শক্তিশালী পদক্ষেপ হিসাবে প্রস্তুত করতে লেগে পড়েছে। দার্জিলিংয়ে  নির্বাচনী সমাবেশ চলাকালীন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী এই বিষয়টিকে অনেকটা উত্থাপন করেছিলেন। তিনি দাবি করেছিলেন যে এটি গোরখা এই অঞ্চলের কোনো গোষ্ঠীকে প্রভাবিত করবে না।

একই সঙ্গে নাগরিকত্ব সংশোধনী বিলের (CAB) মাধ্যমে বিজেপি প্রতিবেশী দেশগুলি থেকে আসা অমুসলিমদের নাগরিকত্ব দেবে। পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এনআরসি নিয়ে বিজেপি সরকারের পদক্ষেপের উপর হামলা করেছেন। তৃণমূলকংগ্রেস বিজেপির উপর এনআরসি নিয়ে পশ্চিমবঙ্গে আতঙ্ক সৃষ্টি করার অভিযোগ করেছেন। তিনি দাবি করেছেন যে এনআরসি বাস্তবায়নের সম্পর্কিত তথ্যর কারণে রাজ্যে ছয়জন লোক মারা গেছেন। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় জানিয়েছেন যে তিনি কখনই বাংলায় এনআরসি লাগু করতে দেবেন না। তিনি বলেছেন যে এনআরসি নিয়ে বিজেপির মিথ্যা গুজব ছড়ানো বন্ধ করা উচিত। অন্যদিকে পশ্চিমবঙ্গে কোনো নাগরিক এর মৃত্যু হলে সেটাকে NRC আতঙ্ক এ মৃত্যু বলে চালিয়ে দেওয়া হচ্ছে বলে বিজেপি সমর্থকরা সোশ্যাল মিডিয়ায় দাবি করেছেন।

অমিত শাহ পুরো দেশে স্লোগান দিয়েছেন যে পুরো দেশে এনআরসি কার্যকর হবে এবং অবৈধভাবে প্রবেশ করা প্রত্যেককেই দেশে থেকে বের করে দেওয়া হবে। তবে শরণার্থীদের কোনোভাবে দেশ থেকে বের করা হবে না। এনআরসি-র অন্তিম তালিকাটি আসামে প্রকাশিত হয়েছে, যেখানে প্রায় ১.৯ মিলিয়ন মানুষ এই তালিকা থেকে নিখোঁজ রয়েছে। এনআরসির তালিকা থেকে বাদ দেওয়া লোকেদের বিদেশী ট্রাইব্যুনালগুলিতে আবেদন করার জন্য ১২০ দিন সময় দেওয়া হয়েছে।



Source link

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Close