মুর্শিদাবাদে হত্যা করা হলো স্কুল-শিক্ষক সহ পরিবারের তিনজনকে! বুদ্ধিজীবী, মিডিয়া নিশ্চুপ।


ইসলামিক আগ্রাসন থেকে বাঙালি হিন্দুদের রক্ষা করতে বাংলাদেশকে ভেঙে তৈরি করা হয়েছিল পশ্চিমবঙ্গ। হিন্দু বাঙালিদের বাসভূমি হিসেবে বাংলাদেশ থেকে আলাদা করে পশ্চিমবঙ্গকে একীকরণ করা হয়েছিল ভারতে। কিন্তু এখন পশ্চিমবঙ্গও হিন্দুদের জন্য অসুরক্ষিত হয়ে পড়েছে। পশ্চিমবঙ্গে ধর্মনিরপেক্ষতার নামে হিন্দুদের অবহেলিত করা ও তৃতীয় শ্রেণীর নাগরিকে পরিণত করার পক্রিয়া চরম পর্যায়ে চলছে। পশ্চিমবঙ্গের জিয়াগঞ্জ থেকে চাঞ্চল্যকর খবর সামনে এসেছে যা নিয়ে বামপন্থী বুদ্ধিজীবীগণ ও কলকাতার নামীদামী মিডিয়া মুখে লাগাম লাগিয়েছে।

বিজয়া দশমীর দিন মুর্শিদাবাদের জিয়াগঞ্জের লেবুতলা এলাকায় এক শিক্ষকের বাড়িতে হামলা চালায় দুষ্কৃতীরা। এই হামলায় স্কুল শিক্ষক তাঁর সন্তানসম্ভবা স্ত্রী ও ছেলে সহ মোট তিনজনকে হত্যা করা হয়েছে। স্কুল শিক্ষকের নাম বন্ধুপ্রকাশ পাল (৩৫), স্ত্রী বিউটি মণ্ডল পাল (৩০) ও তাঁদের বছর আটের ছেলে বন্ধুঅঙ্গন পালের ক্ষত-বিক্ষত দেহ উদ্ধার করা হয়েছে। স্কুল শিক্ষক বন্ধুপ্রকাশ পাল RSS সমর্থক ছিলেন উনার হত্যা করা হয়েছে বলে সোশ্যাল মিডিয়া দাবি উঠেছে। রহস্যের সমাধান করতে আপাতত নিহত দম্পতির মোবাইল নিয়ে তদন্ত চালাচ্ছে পুলিশ।

 

স্কুল শিক্ষকের বাড়ি থেকে ধারালো অস্ত্র পাওয়া গেছে, অনুমান করা হচ্ছে ওই অস্ত্র দিয়েই খুন করা হয়েছে। বাড়ি থেকে কোনো জিনিসপত্র চুরি হয়নি, তাই দুর্গাপুজার পবিত্র সময়ে এমন ঘৃণ্য কাজের পেছনে কি উদেশ্য রয়েছে তা অত্যন্ত রহস্যজনক। সোশ্যাল মিডিয়ায় দাবি উঠেছে যে, স্কুল শিক্ষক বন্ধুপ্রকাশ পাল RSS ও বিজেপি সমর্থক ছিলেন তাই খুন করা হয়েছে। প্রসঙ্গত, অন্য কোনো রাজ্যে কোনো মুসলিম যুবক চুরি করতে গিয়ে মার খেলে পশ্চিমবঙ্গের মিডিয়া মব-লিনচিং এর বিরুদ্ধে আওয়াজ তুলতে শুরু করে। কিন্তু এখন পশ্চিমবঙ্গের মিডিয়া কোনো ডিবেট, কোনো প্রশ্নঃ, কোনো বিশেষ শো করছে না বলে অভিযোগ উঠেছে।



Source link

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Close