তুর্কীকে জব্দ করতে মোদীর সথে মাঠে নেমে পড়লেন ট্রাম্প, পুতিন! লাগানো হলো আর্থিক নিষেধাজ্ঞা।


ইসলামিক দেশ তুর্কী বিশ্বজুড়ে উৎপাত শুরু করেছে। শান্তির পরিবেশকে নষ্ট করে তুর্কী সিরিয়ার উপর লাগাতার আক্রমন করছে। তুর্কী সেই কুর্দ লড়াকুদের উপর আক্রমণ করছে যারা IS দমনে সবথেকে বড়ো ভূমিকা পালন করেছিল। ভারত তুর্কীর এহেন আচরণের কড়া নিন্দা করে সংযত করার কথা বলেছে। আগের সপ্তাহে তুর্কীর রাষ্ট্রপতি বলেছিলেন, আমেরিকা তদের ছাড় দিয়েছে সিরিয়ার সেনা পাঠানোর। এই মন্তব্যের পরেই আমেরিকার রাষ্ট্রপতি ডোনাল্ড ট্রাম্প তুর্কীকে পাল্টা ধমক দেন। ডোনাল্ড ট্রাম্প বলেন, যদি তুর্কী সিরিয়ায় সীমা পার করে তবে তাদের অর্থনীতি ধ্বংস করে দেবে আমেরিকা।

আর এখন আমেরিকা সেটা বাস্তবে করেও দিয়েছে। আমেরিকা তুর্কীর উপর আর্থিক নিষেধাজ্ঞা লাগিয়ে দিয়েছে। তুর্কী সিরিয়ার উপর আক্রমণের পর আমেরিকা এই সিধান্ত নিয়েছে। রাশিয়া ও সিরিয়াও তুর্কীর বিরুদ্ধে হাত মিলিয়ে কুর্দ সেনার সমর্থনে এসেছে। এবার মনে করা হচ্ছে পুরো বিশ্ব তুর্কীকে ঘিরে ফেলার সিধান্ত নিচ্ছে। তবে একমাত্র পাকিস্তান তুর্কীর পাশে দাঁড়িয়েছে। তুর্কীর দ্বারা করা উপদ্রবকে আমেরিকা ন্যাশনাল এমার্জেন্সি বলেছে।

আমেরিকা ও তুর্কীর মধ্যে ১০০ বিলিয়ন।ডলারের যে চুক্তি চলছে সেটাকেও নিষেধাজ্ঞার আওতায় আনা হয়েছে। খবর এটাও আসছে যে, রুশের কথা মেনে কুর্দ লড়াকুরা সিরিয়ার সরকারের সাথে হাত মিলিয়ে নিয়েছে। এবার সিরিয়ার সৈনিক ও কুর্দ লড়াকু মিলে তুর্কীকে জবাব দেবে বলে জানা গেছে। তুর্কীর বিরুদ্ধে বলার জন্য শধু ভারত, আমেরিকা, রুশ নয় বরং এই তালিকা অনেক লম্বা। জার্মানি, ফ্রান্স, ইজরায়েলের মতো দেশও তুর্কীর বিরুদ্ধে মুখ খুলেছে।

 

একমাত্র পাকিস্তান তুর্কীকে সমর্থন করেছে। কিন্তু আন্তর্জাতিক মঞ্চে পাকিস্তানের কোনো জোর নেই। ভারত সরকার তুর্কীর সাথে ২.৩ মিলিয়ন ডলারের এক চুক্তি বাতিল করে দিয়েছে। আগামী সময়ে আরো এমন চুক্তি বাতিল হবে বলে ধারণা করা হচ্ছে। একইসাথে তুর্কী থেকে যে আতঙ্কবাদের উৎপত্তি হচ্ছে তার উপরেও ভারত বিশ্বকে এক হওয়ার ডাক দেবে।



Source link

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Close