মুর্শিদাবাদ হত্যাকান্ড নিয়ে প্রতিবাদে রাস্তায় নামলো উত্তরপ্রদেশ ও বিহারের মানুষ! পশ্চিমবঙ্গে বাঙালিপ্রেমীরা নিশ্চুপ।


পশ্চিমবঙ্গে এখন এমনকিছু সংগঠন তৈরি হয়েছে যারা অতিরিক্ত বাঙালি প্রেম দেখিয়ে প্রাদেশিকতাকে উস্কানি দিচ্ছে। এদের মধ্যে এমন অনেকে আছে যারা পশ্চিমবঙ্গকে বাংলাদেশে যুক্ত করার সমর্থক। দেশের ভিন্ন ভাষীদের সাথে বাংলাভাষীদের লড়াই লাগিয়ে দিতেও উস্কানি দিচ্ছে এই তথাকথিত বাংলাপ্রেমী সংগঠনগুলি। সোশ্যাল মিডিয়ায় দাবি করা হয়েছে এই সংগঠনগুলি বাংলাদেশি কট্টর ইসলামিক সংগঠনের সাথে যুক্ত যারা পশ্চিমবঙ্গকে কাশ্মীর পরিণত করার জন্য কাজ করছে। তাই এর পশ্চিমবঙ্গে কোনো হিন্দু বাঙালি খুন হলে তথাকথিত বাংলা প্রেমীরা নিশ্চুপ থেকে যায়।

রাঁচিতে মুর্শিদাবাদ হত্যাকাণ্ডের প্রতিবাদ

উদাহরনসরূপ, মুর্শিদাবাদে যে হত্যাকান্ড হয়েছে তা নিয়ে পুরো দেশ উত্তাল। দেশের নানা প্রান্তে মুর্শিদাবাদে বাঙালি হিন্দু পরিবারের খুন নিয়ে প্রতিবাদ মিছিল হয়েছে। কিন্তু যে রাজ্যে এমন নৃশংস হত্যাকান্ড সেই রাজ্যেই প্রতিবাদ চোখে পড়ে না। মঙ্গলবার উত্তরপ্রদেশের বজরং দল পশ্চিমবঙ্গে নিরীহ মানুষ হত্যার প্রতিবাদে জেলা সদরে এসডিএম রজতালবকে একটি স্মারকলিপি জমা দিয়েছে।  প্রাক্তন কর্মীরা পশ্চিমবঙ্গ সরকারকে বরখাস্ত এবং রাষ্ট্রপতির শাসন লাগু করার দাবি জানিয়েছেন। একইসাথে বন্ধু প্রকাশ পাল ও তার পরিবারের হত্যার সিবিআই তদন্তের দাবি জানিয়েছে।

রাষ্ট্রপতির কাছে জমা দেওয়া স্মারকলিপিতে বলা হয় যে পশ্চিমবঙ্গের মুর্শিদাবাদে ১০ অক্টোবর বন্ধু প্রকাশ পাল ও তাঁর গর্ভবতী স্ত্রী  হত্যা করা হয়েচড়। এতে হিন্দু সমাজ আহত হয়েছে। মমতা সরকার সংবিধান উপেক্ষা করছে। আহ্বায়ক নিখিল ত্রিপাঠি, কানহাইয়া সিং, রাজন তিওয়ারি, অর্জুন মৌর্য, নিখিল তিওয়ারি, মনোজ মৌর্য প্রমুখ অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন। তবে উত্তরপ্রদেশের মানুষ পশ্চিমবঙ্গের হত্যাকান্ড নিয়ে আওয়াজ তুললেও পশ্চিমবঙ্গে সাড়াশব্দ নেই বললেই চলে। ঝাড়খন্ডের রাঁচি ও পাকুড়েও এমন প্রতিবাদ প্রদর্শন হয়েছে।



Source link

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Close